নেওয়াশী ইউনিয়ন পরিষদে তথ্য সেবা উদ্যোক্তার হয়রানি,বাড়তি অর্থের বিনিময়ে মিলছে জন্ম সনদ

এ আর রাকিবুল হাসান ,কুড়িগ্রাম
এ আর রাকিবুল হাসান ,কুড়িগ্রাম এ আর রাকিবুল হাসান ,কুড়িগ্রাম
প্রকাশিত: ১০:৪৯ অপরাহ্ন, ২০ জানুয়ারী ২০২২ | আপডেট: ১:৩০ অপরাহ্ন, ২১ এপ্রিল ২০২৪

কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার( ৭) নং নেওয়াশী ইউনিয়ন পরিষদ উদ্যোক্তা সিদ্দিকুর রহমানের হয়রানির শিকার হচ্ছেন ইউনিয়নের সাধারণ মানুষ, জন্ম নিবন্ধন সনদ নিতে গেলে সকল প্রকার বৈধ কাগজপত্র জমা নিয়ে অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন ফরম উত্তলনের সময় ইচ্ছা কৃত ভাবে ভুল তথ্য দিয়ে ফরম পূরণ করে প্রিন্ট কপি ও বসত বাড়ির বাৎসরিক কর বাবদ (৫০)পঞ্চাশ টাকা ও জন্ম নিবন্ধন আবেদন ফরম বাবদ ১০০ টাকা মোট ১৫০টাকা নিয়ে দেয়া হয় আবেদন ফরম নিবন্ধন ধারি ব্যক্তিকে , আবেদন ফরমের ভুল সংশোধনের জন্য পাঠিয়ে দেন উদ্যোক্তা মোছাঃ মোর্সেদা বেগমের কাছে ।

সে নামের ভুল সংশোধনের জন্য নিবন্ধন ধারির কাছে ২০০ থেকে ২৭০টাকা পর্যন্ত নিয়ে দিচ্ছেন জন্ম নিবন্ধন সনদ। গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় স্থানীয় সরকার বিভাগের প্রঙ্গাপণ অনুযায়ী জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন বিধিমালা, ২০১৭ এর বিধি ২৩ এর উপ _বিধি (৭) এর ক্ষমতা বলে , সরকার কর্তৃক জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন ফিস নির্ধারণ করেন । (১)জন্ম ও মৃত্যু ৪৫ দিন পর্যন্ত জন্ম মৃত্যু নিবন্ধন ফ্রি (২)জন্ম বা মৃত্যুর ৪৫ দিন হইতে (৫)বৎসর পর্যন্ত নিবন্ধন ফি ২৫ টাকা (৩)জন্ম বা মৃত্যুর পাঁচ বছর পর কোন ব্যক্তির জন্ম বা মৃত্যুর নিবন্ধন ফি ৫০ টাকা (৪)জন্ম তারিখ সংশোধন ফি ১০০টাকা (৫)জন্ম তারিখ ব্যতিত সকল তথ্য সংশোধনী ফি ৫০টাকা ,(৬) বাংলা ইংরেজি উভয় ভাষার মুল সনদ বা তর্থ সংশোধনের পর ,সনদের কপি সরবরাহ ফ্রি (৭) বাংলা ইংরেজি উভয় ভাষার সনদের নকল সরবরাহ ৫০টাকা ।

সরকারি ঘোষণার তোয়াক্কা না করে সাধারণ মানুষের কাছে নেয়া হয় সনদ সংশোধনী বাবদ মোটা অংকের টাকা , পশ্চিম নেওয়াশী পন্তাবাড়ী গ্ৰামের নুর মোহাম্মদ (২৫) পিতা জয়নাল আবেদীন জানান আমার সকল প্রকার বৈধ কাগজপত্র জমা নিয়ে উদ্যোক্তা সিদ্দিকুর রহমান নিজেই ভুল লিখে পুনরায় সংশোধনী করার জন্য ৩০০০তিন হাজার টাকা নিয়ে ছিল টাকা নিয়েও সংশোধন করতে পারে নাই ৬ মাস ঘোরানোর পরে পুনরায় সংশোধনী করার জন্য মোছাঃ মোর্সেদা বেগমের কাছে পাঠায় সে ২৫০টাকা নিয়ে সংশোধন করে দিয়েছে ।

একই গ্ৰামের , শ্রী স্বপন কুমার পিতা মৃত রতি কান্ত জানান আমার (৩) বছর বয়সী মেয়ের জন্য জন্ম নিবন্ধন নিতে গিয়ে সিদ্দিকুর রহমান কে ৩০০টাকা দিয়ে সনদ পাইছি ,পশ্চিম নেওয়াশী যুগিটারী গ্ৰামের বাসিন্দা মোঃ মহিউদ্দিন পিতা মোঃ হাসেন আলী খন্দকার জানান আমার মেয়ের বিয়ের সময় জন্ম নিবন্ধন নিতে গিয়ে ছিলাম আমার কাছে সিদ্দিকুর রহমান ৫০০টাকা নিয়েছে, একই গ্ৰামের মোঃ জাহিদুল ইসলাম জাহিদ (২৪) পিতা মোঃ আবু সালেহ মন্ডল জানান আমার সকল প্রকার বৈধ কাগজপত্র জমা নিয়ে উদ্যোক্তা সিদ্দিকুর রহমান জন্ম নিবন্ধনে ভুল করেছে টাকা নিয়েছে ৫০০ পাঁচ শত ভুল সংশোধনের জন্য আর যাইনি হয়রানি করায় ।

একই গ্ৰামের মোঃ আবু বক্কর সিদ্দিক বলেন আমার জমির পর্চা তুলতে গিয়েছিলাম আবেদন করতে হবে বলে প্রথমে টাকা নিয়েছে ১৫০ ,এক বৎসর ঘুরানোর পর কাগজ দিয়ে পুনরায় আরো ৫০০টাকা নিয়েছে , উদ্যোক্তা সিদ্দিকুর রহমানের হয়রানির শিকার ইউনিয়নের অনেকেই শুধু মাত্র ইউপির (২) নং ওয়ার্ডের আংশিক তথ্য তুলে ধরা হলো ইউনিয়ন পরিষদের এক জন উদ্যোক্তা যিনি সকল সেবা মূলক কাজে উদ্যোগী হবেন , সেই উদ্যোক্তার কাছেই যদি সাধারণ মানুষ হয়রানির শিকার হন আর রাষ্ট্রীয় সেবা যদি দ্রব্য মুল্যের মত চড়া দামে নিতে হয় সাধারণ মানুষ কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে ।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান মোঃ মাহফুজার রহমান মুকুল কে জানালে তিনি বলেন আমি শপথ গ্ৰহনের পর পরিষদের দায়িত্ব পেলে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া সকল প্রকার সুবিধা খুব সহজেই সাধারণ মানুষ উপভোগ করতে পারে সেই লক্ষেই কাজ করবো ইনশাআল্লাহ